৫ই বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৮ই এপ্রিল ২০২১ ইং| ৫ই রমযান ১৪৪২ হিজরী

মো: সামছুল হক চৌধুরী’র পিএইচডি ডিগ্রি লাভ

0
মো: সামছুল হক চৌধুরী’র পিএইচডি ডিগ্রি লাভ
বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপকমিটির সদস্য,
যুক্তরাজ্য জাতীয় শ্রমিক লীগের কার্যকরী সভাপতি সমাজ সেবক ও রাজনীতিবীদ
অ্যাডভোকেট মো: সামছুল হক চৌধুরী সম্প্রতি লন্ডনের ইউনিভার্সিটি অব
গ্রীনউইচ থেকে ডেভলপমেন্ট স্টাটিজ বিষয়ে পিএইচডি ডিগ্রী লাভ করেন। তাঁর
গবেষণার বিষয় ছিল অ ঝঃঁফু ঙহ এড়ড়ফ এড়াবৎহধহপব, উবসড়পৎধপু অহফ
উবাবষড়ঢ়সবহঃ: ঈযধষষবহমবং ঋড়ৎ উরমরঃধষ ইধহমষধফবংয।
মো:সামছুল হক চৌধুরী ১৯৭০ খিস্টাব্দে সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই উপজেলার ৭নং
জগদল ইউনিয়নের নোয়াপাড়া-দৌলতপুর গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে
জন্মগ্রহন করেন। তাঁর পিতা ছিলেন ভাটিবাংলার শিক্ষানুরাগী, শাহাব উদ্দিন
আহমদ চৌধুরী এবং ফাতেমা বেগম চৌধুরীর চতুর্থ সন্তান। তিনি ১৯৮৬ সালে জগদল
আলফারুক দ্বিমুখী উচচ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি ও ১৯৮৮ সালে সিলেট সরকারী
মুরারীচাঁদ কলেজ থেকে এইচএসসি, ১৯৯০ সালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে
বিএ ডিগ্রী লাভ করেন এবং ১৯৯৬ সালে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিষয়ে ঢাকা
বিশ্বিবিদ্যালয়ের অধীনে এম এ পাশ করেন। তিনি সকলের কাছে দোয়া প্রার্থী।
উল্লেখ্য: সামছুল হক চৌধুরী’র সামাজিক ও রাজনৈতিকভাবে বিশেষ অবদান রাখায়
ইতোমধ্যে তিনি অসংখ্য সম্মাননা খ্যাতি অর্জন করেছেন। বিশেষ করে অতীশ
দীপংকর স্মৃতি ফাউন্ডেশন থেকে ‘সনদপত্র’ এবং ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ
স্মৃতি ফাউন্ডেশন থেকে ‘সম্মাননা পত্র’ অর্জন করেন। মো. সামছুল হক
চৌধুরীর তাঁর পিতা মরহুম আলহাজ¦ শাহাব উদ্দিন চৌধুরী’র নামে
পারিবারিকভাবে একটি ওয়েল ফেয়ার ট্রাস্ট গঠন করে এলাকার বিভিন্ন
আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে কাজ করতে ভালোবাসেন।প্রসঙ্গত: সামছুল হক চৌধুরী’র
সুনামগঞ্জ-২, দিরাই-শাল্লা আসনে গত দুই টার্মে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ
থেকে জাতীয় সংসদ সদস্য পদের জন্য মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। এব্যাপারে তিনি
বলেন পারিবারিকভাবেই তিনি স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা জাতির জনক
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের সৈনিক কাজ করছেন। তিনি ছাত্রজীবনে
ছাত্রলীগের রাজনীতির মাধ্যমে তার যাত্রা শুরু হয় ১৯৯০ইং স্বৈরাচার বিরোধী
আন্দোলন এবং ১/১১ জননেএী শেখ হাসিনার মুক্তি আন্দোলন থেকে শুরু করে দেশে
ও প্রবাসে সক্রিয় থেকে সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের
সোনার বাংলা ও জননেত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মানে কাজ
করার প্রত্যয় প্রকাশ করেন।
সম্প্রতি তিনি দেশে এসে বর্তমান সরকারের স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা সেবা জনগনের
দৌড়গোড়ায় পৌঁছে দেওয়ার অংশ হিসেবে সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই উপজেলার জগদল
ইউনিয়নে ২০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালটিতে স্বাস্থ্য সেবা চালু করতে তিনি
পরিকল্পনামন্ত্রীর মাধ্যমে তিনি একটি ডিও লেটার স্বাস্হ্য মন্ত্রীর কাছে
হস্তান্তর করেন। অপরদিকে দিরাই-শাল্লা উপজেলায়  সরকারিভাবে কারিগরি
প্রতিষ্ঠান নির্মাণের জন্য পরিকল্পনা মন্ত্রীর মাধ্যমে তিনি ডিও লেটার
শিক্ষা মন্ত্রী কাছে হস্তান্তর করেন।সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই উপজেলায় ছেলে-
মেয়েদের খেলাধুলা তথা মানসিক বিকাশের জন্য
শেখ রাসেল স্টেডিয়াম’র নির্মাণের সুপারিশ ক্রীড়া মন্ত্রীর নিকট হস্তান্তর
করেন। তিনি ছাত্রজীবনের পর থেকে পারিবারিক প্রয়োজনে দেশের বাহিরে অবস্থান
করলে ও সেখান থেকে ও তার রাজনৈতিক তৎপরতা চালিয়ে আসছেন। তিনি ৩৪ বৎসর
যাবৎ আওয়ামী রাজনীতিও বিভিন্ন আর্থ-সামাজিক সংগঠনের সাথে অতপ্রোতভাবে
জড়িত থেকে এলাকার উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন। আগামিতে সুনামগঞ্জ ২ আসনে
সংসদ সদস্য প্রার্থী হিসেবে আসছেন বলে তিনি জানান।

Leave A Reply

3 + 9 =

shares